হজ্জ্ব বীমা (মুনাফা সহ)


ভূমিকা: ইসলামের পাঁচটি মূল স্তম্ভেও অন্যতম একটি স্তম্ভ হচ্ছে হজ্ব। মহান আল্লাহ পবিত্র কুরআনে হজ্ব পালনের নির্দেশ দিয়েছেন। স্বাধীন, সুস্থ বয়ঃপ্রাপ্ত ও হজ্বে যাওয়া আসার সমুদয় খরচ ও এ সময়ে পরিবার পরিজনের ভরণ পোষণের সামর্থ যার রয়েছে তার জন্য হজ্ব পালন করা ফরজ। এ ব্যাপারে আল্লাহর নির্দেশ, ” এতে রয়েছে মকামে ইব্রাহীমের মত প্রকৃষ্ট নিদর্শন। আর যে, লোক এর ভেতরে প্রবেশ করেছে, সে নিরাপত্তা লাভ করেছে। আর এ ঘরের হজ্ব করা হলো মানুষের উপর আল্লাহর প্রাপ্য; যে লোকের সামর্থ রয়েছে এ পর্যন্ত পৌছার। আর যে লোক তা মানে না। আল্লাহ সারা বিশ্বের কোন কিছুরই পরোয়া করেন না।”---(সুরা ইল-ইমরান: আয়াত-৯৭)


বৈশিষ্ট্য:

  • মেয়াদ শেষে অথবা বীমা চলাকালে গ্রাহকের মৃত্যুতে বীমার টাকা পরিশোধ করা হয় ।
  • মেয়াদ : ৫, ৬, ৭, ৮, ৯, ১০, ১১, ১২, ১৩, ১৪ ও ১৫ বৎসর ।
  • প্রবেশকালীন বয়স: ২০ বৎসর ; মেয়াদপূর্তি বয়সঃ ৫৫ ।
  • বীমা অংক : এই পরিকল্পে সর্বনিম্ন বীমা অংক ১,০০,০০০/- (এক লক্ষ) ।
  • সর্বোচ্চ বীমা অংক : গ্রাহকের চাহিদা অনুযায়ী।
  • সহযোগী বীমা : এই পরিকল্পের সাথে কোন সহযোগী বীমা প্রদান করা হয় ।
  • আয়কর রেয়াত : প্রদানকৃত প্রিমিয়ামের উপর আয়কর রেয়াত পাওয়া যায় ।

  • সুবিধা :

  • মেয়াদ শেষে অর্জিত মুনাফা সহ মুল বীমা অংক প্রদান করা হয়

  • মৃত্যু ঝুকিঁ :

  • বীমার মেয়াদ কালে যে কোন সময় বীমাকৃত এর মৃত্যুতে বীমা অংকের সম পরিমান অর্থ পরিশোধ করা হয়।